১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার

জেএসসি-এসএসসিতে খারাপ করা শিক্ষার্থীদের যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী hi

আপডেট: অক্টোবর ৭, ২০২০

করোনাভাইরাসের কারণে এবারের এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা হবে না। এসব শিক্ষার্থীর জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে এইচএসসির মূল্যায়ন করা হবে। এছাড়া যারা আগে পরীক্ষাতে এক বা দুই বিষয়ে খারাপ করেছিল তাদের বিষয়েও একই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। আগামী ডিসেম্বর এই মূল্যায়নের কাজটি করা হবে। আজ বুধবার (৭ অক্টোবর) অনলাইনে সাংবাদিক সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এসব কথা জানান।তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যাতে শুরু হতে পারে এ জন্যই ডিসেম্বরে ফলাফল দেয়া হবে। জেএসসির কত পারসেন্ট, এসএসসির কত পারসেন্ট সেটা বিশেষজ্ঞ কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়ে তার ভিত্তিতে মূল্যায়ন করবে। পরিস্থিতির ওপর গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি নির্ভর করবে।’ শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তায় সার্বিক বিবেচনায় ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা ভিন্ন পদ্ধতিতে মূল্যায়ন হবে। যেভাবে গ্রহণযোগ্যতা পাবে, তা বিবেচনা করছি। এ পরীক্ষার জন্য ৩০ থেকে ৩২ দিন সময় দরকার হয়। এক বেঞ্চে একজন ছাত্রী সম্ভব নয়। এখন কেন্দ্র দ্বিগুণ করার জনবল নেই।’করোনাভাইরাসের কারণে এবারের এইচএসসি বা সমমানের পরীক্ষা হবে না। এসব শিক্ষার্থীর জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে এইচএসসির মূল্যায়ন করা হবে। এছাড়া যারা আগে পরীক্ষাতে এক বা দুই বিষয়ে খারাপ করেছিল তাদের বিষয়েও একই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। আগামী ডিসেম্বর এই মূল্যায়নের কাজটি করা হবে। আজ বুধবার (৭ অক্টোবর) অনলাইনে সাংবাদিক সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি এসব কথা জানান।তিনি আরও বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি যাতে শুরু হতে পারে এ জন্যই ডিসেম্বরে ফলাফল দেয়া হবে। জেএসসির কত পারসেন্ট, এসএসসির কত পারসেন্ট সেটা বিশেষজ্ঞ কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়ে তার ভিত্তিতে মূল্যায়ন করবে। পরিস্থিতির ওপর গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি নির্ভর করবে।’ শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তায় সার্বিক বিবেচনায় ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা ভিন্ন পদ্ধতিতে মূল্যায়ন হবে। যেভাবে গ্রহণযোগ্যতা পাবে, তা বিবেচনা করছি। এ পরীক্ষার জন্য ৩০ থেকে ৩২ দিন সময় দরকার হয়। এক বেঞ্চে একজন ছাত্রী সম্ভব নয়। এখন কেন্দ্র দ্বিগুণ করার জনবল নেই।’